Ultimate magazine theme for WordPress.

খুরুশকুলের কোলিয়া পাড়ায় বসতবাড়ি ভাংচুর ও জবরদখলের ঘটনায় আহত-২

0
১৩৫ Views

নিউজ ডেস্ক:

কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধিঃ-

কক্সবাজারের খুরুশকুল কোলিয়াপাড়া এলাকায় দীর্ঘ ৩০ বছরের বসতবাড়িতে দিনদুপুরে ভাংচুর করে জিয়াবুল গং ও (আনিস ওরফে ধলো) গং এর লাঠিয়াল বাহিনীরা দিনদুপুরে ভাংচুর ও লুটপাট করে তাদের লাঠিসোটার আঘাতে আবুল হোসেন (৬০)ও ছেলে প্রবাসী মনছুর (২৮) পিতাপুত্র দুই জন আহত হয়েছেন।

আহতরা হলেন নিজ বসতবাড়ির মালিক স্থানীয় খুরুশকুল কোলিয়াপাড়া গ্রামের মৃত: মোহাম্মদ আলীর পুত্র আবুল হোসেন (৫০)ও আবুল হোসেনের পুত্র: মনছুর (২৮) এর মধ্যে আবুল হোসেনকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা রয়েছে।

১৫ য়ে সেপ্টেম্বর বুধবার বিকাল ৫:০০টার সময় এই ঘটনাটি ঘটে।
অভিযুক্তরা হলেন খুরুশকুল ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা কোলিয়া পাড়া গ্রামের মৃত আমির হামজার পুত্র জিয়াবুল হক (৩০)ও আনিস ওরফে ধলো (৩৩)
তারা একি গ্রামের বাসিন্দা।

অভিযুক্ত জিয়াবুল হক বলেন এই জমির বিষয় নিয়ে দীর্ঘ ৮ মাসের ও বেশি সালিশী বৈঠক চলে আসছে তারা কোন প্রকার মানতে নারাজ, তাই তাদের বসতবাড়ির চারপাশে দেওয়া টিনের পর্দা ভেঙ্গে দিয়ে তাদের ধাওয়া করেছি তবে তাদের উপর কোন ধরনের মারধরের ঘটনা ঘটে নি ।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ তারা দীর্ঘ ৩০ বছরের ও বেশি তাদের নিজস্ব বসতবাড়িতে বসবাস করে আসছেন হঠাৎ একদল চাঁদাবাজ আমাদের পরিবারের কাছে চাঁদা দাবি করেন এমনকি চাঁদার টাকা না দেওয়ায় আমাদের বসতবাড়িতে হামলা চালায় ভাংচুর করে জিয়াবুল গং ও আনিস ওরফে ধলো গং তাদের সাথে থাকা কিছু সন্ত্রাসী লোকজনকে আমরা চিহ্নিত করতে পারি নি তবে এই বিষয়ে পুলিশকে অবগত করেছি।

এদিকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন বসতবাড়ির মালিক আবুল হোসেনের সঙ্গে মৃত আমির হামজার পুত্র জিয়াবুল ৩০ ও তার সহযোগী সৈয়দের পুত্র (আনিস ওরফে ধলো) ৩৩ প্রতিপক্ষের হামলায় পিতাপুত্র আহত হয়েছেন তা আমি অবগত এবং সেই বিষয়ে আবুল হোসেনের পুত্র মনজুর আলম আমাকে অবগত করেছেন তা পরবর্তী স্থানীয় সালিশী বৈঠকের মাধ্যমে সমাধান করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছি।
এদিকে উপজেলার খুরুশকুল ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মাখন বলেন বসতবাড়ির মালিক আবুল হোসেন ও তার ছেলে প্রবাসী মনছুর প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়েছেন তা শুনেছি এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করতে স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহল গাড়ি চলাচলের সময় এই বিষয়ে জেনেছেন এবং স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মিরা ও অবগত তবে এমন ঘটনা কখনো সমাধানের পথ হতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

নিউজ ডেস্ক:
কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি

Leave A Reply

Your email address will not be published.