Ultimate magazine theme for WordPress.

পটুয়াখালীর বাধঁঘাটে বারেক ও খলিল বাহিনীর অতর্কিত হামলায় ৩ নারী সহ আহত ৬.

0
৯৯ Views

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ঃ

পটুয়াখালী সদর উপজেলার ১০ নং কালিকাপুর হেতালিয়া বাধঁঘাট নান্নু সুপার মার্কেট সংলগ্ন ২৬- সেপ্টেম্বর শনিবার সকাল ১১.০০ ঘটিকার সময় সাবেক বিএনপি নেতা বারেক চৌকিদার ও খলিল চৌকিদার বাহিনীর, জসিম হাং (৩০), বশির হাওলাদার (৩৫),সহ ১০-১৫ জন বহিরাগত ভারাটে সন্ত্রাসী বাহিনীর আতর্কিত হামলার স্বীকার হয়ে তিন নারী ও তিনজন পুরুষ গুরুত্বর আহত হয়েছে।হামলাকারী জসিম ও বশির হলেন ইটবাড়িয়া ইউপি ৩ নং ওয়ার্ডের ডাকরবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা উভয় পিতাঃ মোঃ ইউনুছ হাওলাদার।আহতরা হলেন, ১. ফোরকান মুন্সী (৬৫), ২. আব্দুল রব মুন্সি (৭০), ৩.শাহিন চৌকিদার (১৮), ৪. অমেলা বেগম (৬০), ৫. জরিনা বেগম (৬৫), ৬. তারা বানু (৫০), বর্তমানে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা-বিশিষ্ট হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন।

সরেজমিন অনুসন্ধানে জানাগেছে , পুর্ব জমি জমার জেরে উভয় পক্ষের মামলা চলছে।ঘটনার দিন উভয় পক্ষের সঙ্গে মিমাংসার জন্য বসার কথা ছিলো।এবিষয়ে আহত ফোরকান মুন্সি প্রতিবেদককে বলেন, আমরা সকাল ১১ টার দিকে হেতালিয়া বাধঁঘাট নান্নু সুপার মার্কেটের সামনে দাড়িয়ে কথা বলছিলাম। এমন সময় বিএনপি নেতা বারেক চৌকিদার ও তার ভাই খলিল চৌকিদার এর নেতৃত্বে জসিম ও বশির ৫-৬ টা মোটরসাইকেলে ১০-১৫ জন বহিরাগত লোকজন লোহার রট, হকিস্টিক ও দেশীয় অস্ত্রসস্র নিয়ে এসে আমাদের উপরে হঠাৎ অতর্কিত হামলা চালায়।এতে আমাদের ৬ জনের মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুত্বর জখমি হয়েছি।তিনি আরও বলেন, আমাদের ডাকচিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে মৃত্যুর হুমকি দিয়ে সন্ত্রাসী বাহিনীরা বীর দর্পনে চলে যায়।পরে এলাকাবাসী উদ্ধার করে আমাদের ২৫০ শয্যা-বিশিষ্ট সদর হসপিটালে নিয়ে আসেন। আমরা আইনানুগ ভাবে এই সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবি জানাই।

এনিয়ে আহত রব মুন্সি বলেন, আমরা আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করবো বলে জানান।

Leave A Reply

Your email address will not be published.