Ultimate magazine theme for WordPress.

ঝিকরগাছা শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদে ইউডিসি উদ্যোক্তা পদে নিয়োগ পাওয়ার পরও বহাল নিয়ে অনিশ্চিয়তা

0
১৯১ Views

মোঃ আল মামুন যশোর জেলা প্রতিনিধিঃ

যশোরের ঝিকরগাছা শংকরপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের (ইউডিসি) উদ্যোক্তা পদে নিয়োগ পাওয়ার পরও চাকরীতে বহাল থাকা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে সদ্য নিয়োগ পাওয়া নয়ন হোসেনের। এ নিয়ে উদ্যোক্তা নয়ন হোসেনের মধ্যে চরম হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।

নয়ন হোসেন ঝিকরগাছা শংকরপুর ইউনিয়নের সেকেন্দার কাঠি গ্রামের হবিবার রহমানের ছেলে ও বর্তমানে শংকরপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে(ইউডিসি)উদ্যোক্তা হিসেবে কর্মরত।

জানাযায়, সরকার ঘোষনার পর থেকে শংকরপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের (ইউডিসি) উদ্যোক্তা পদে নিয়োগ প্রাপ্ত ছিলেন তৎকালিন সময়ে মিজানুর রহমান ও তার স্ত্রী। নিয়োগ পাওয়ার দীর্ঘদিন পর হঠাৎ মিজানুর রহমান চেয়ারম্যানের কাছে দু একদিন মৌখিক ছুটির কথা বলে ইউডিসিতে আসা করা বন্ধ করে দেন। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও ইউডিসিতে আসা বন্ধের পাশাপাশি তিনি সবার সাথে যোগাযোগও বন্ধ করেন। এতে ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা সেবা গ্রহীতারা কাক্ষিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছিলেন।

সেবাগ্রহীতা ও ইউপি মেম্বাররা বিষয়টি নিয়ে চেয়ারম্যানকে অনেকবার অবহিত করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত গত ৮ মাস আগে ইউনিয়ন পরিষদের বৈঠকে মেম্বারদের উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে তাকে অব্যাহতি দেয়া সংক্রান্ত রেজ্যুলেশন গ্রহণ করে তা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, এলজিইডির প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

এমতাবস্হায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের উপস্হিতে আলোচনার মাধ্যমে নয়ন হোসেনকে ইউডিসিতে নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও নয়ন হোসেনের নাম এখনো উপজেলা পরিষদে না থাকায় চাকরি বহাল থাকবে কিনা তা নিয়ে চরম অনিশ্চিয়তা পাশাপাশি উদ্যোক্তা নয়ন হোসেনের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম হতাশা।

এব্যাপারে ১০ শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নিছার উদ্দীন জানান,আগের উদ্যোক্তা দীর্ঘদিন অনুউপস্হিত থাকায় পরিষদের কার্যক্রম ব্যাহত হওয়াই ইউপি সদস্যদের নিয়ে রেজুলেশনের করে অস্হায়ী ভিত্তিতে ইউডিসি পদে নতুন একজনকে নিয়োগ দেওয়ার প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা ও যশোর জেলা প্রশাষকের কাছে আবেদনের কপিটি জমা প্রদান করি।

নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যাক্তির বিষয়ে
ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা আরাফাত রহমানের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান,আগের যিনি ছিলেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগের ভিত্তিতে তাহাকে তদন্ত সাফেক্ষের মাধ্যামে সাসপেন্ডে রাখা আছে।বর্তমানে অস্হায়ী একজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।কিন্তু প্রক্রিয়াধিন ভাবে তাকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.