Ultimate magazine theme for WordPress.

রাণীশংকৈলে সন্ধ্যা প্রদীপের আগুনে ১৯টি বাড়ি পুরে ছাই।

0
১৮৪ Views

বিজয় রায় রাণীশংকৈল থেকে…

ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল উপজেলার পূর্ব রাতোর গ্রামে
(হিন্দু পাড়া) বুধবার (৩ ফ্রেরুয়ারী) সন্ধ্যায় আগুন লেগে ১৯টি বাড়ির প্রায় ৩০টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে ।
এতে গরু ছাগল ঘরের আসবাবপত্র মালামালসহ ১৫-১৬ লক্ষাধিক টাকার মত ক্ষতি হয়েছে এমন ধারণা করা হচ্ছে।

এলাকাবাসী ও প্রতক্ষদর্শীরা জানায় রাতোর গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায় পাথানুর বাড়ির ঠাকুর ঘরে সন্ধ্যা প্রদীপ জ্বালাতে গিয়ে এই আগুনের সূত্রপাত শুরু হয় । হঠাৎ করে আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িড়ে পড়ে চারিদিক। খবর পেয়ে রাণীশংকৈল ও পীরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ৩ ইউনিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। রানীশংকৈলে আগুনে ৩৮ টি বাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুনে ২ শিশু দগ্ধ হলে তাদের চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে ।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ ও উপজেলা চেয়ারম্যান শাহরিয়ার আজম মুন্না ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সেসময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম, রাতোর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান শরৎ চন্দ্র, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আকতার হোসেন, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সবুর,স্হানীয় ইউপি সদস্য সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্হিত ছিলেন ।

আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো হলো বুদ্ধি নাথ রায়, ভেনসা রায় , ঘগেন চন্দ্র , পাথানু মোহন , মাঝিল রায় , কামিনী বালা রায় , ধনদেব রায় ,বকুল চন্দ্র , ফুলশরি বালা , হরিপদ রায় ,সফিন চন্দ্র , গোবিন্দ রায় , আলতা রায় , তুরেন চন্দ্র ,গদা রায় সহ অনেকে।

এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের মাঝে নগদ ২হাজার টাকা, কম্বল,খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল জুলকার নাইন কবির স্টিভ বলেন ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে পরবর্তী সাহায্যের জন্য লিখিত আবেদন চাওয়া হয়েছে। আবেদন পেলে সরকারি ভাবে তাদের সহযোগিতা করা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.