Ultimate magazine theme for WordPress.

নিঃস্বার্থ মানবতার  বিরল দৃষ্টান্ত   পটিয়ার কাউন্সিলর   খালেক

0
৩৫ Views

আরিফুল ইসলাম, পটিয়াঃ
দক্ষ, বিনয়ী, নম্রর, কর্মঠ, শান্তির প্রতীক, পরিশ্রমী, বিশিষ্ট  সমাজ সেবক, শিক্ষা অনুরাগী, মানবতার ফেরিওয়ালা। চট্টগ্রামের পটিয়ার সন্তান মোঃ আবদুল খালেক পৌরসভার আল্লা – ওখাড়া কাগজী পাড়ার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা, মোঃ আবদুল খালেক তার ধারা বাহিকতায় নির্বাচিত কাউন্সিলারের সময়ের মধ্যে। পৌর নির্বাচনের পরে বিগত ৫ বছরে তিনি নির্ষ্ঠা ও সততায় কর্মদক্ষতার মধ্য দিয়ে জনগনের অর্পিত গুরুদায়িত্ব পালন কালে উক্ত ওয়ার্ড পৌর সদর প্রানকেন্দ্রে হওয়ায়, মডেল শহর রুপান্তরিত করার   জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি প্রায় অধিকাংশ এলাকাকে মডেল শহর হিসাবে গড়ে   তুলেছেন। এতে আর, সি,সি ঢালাইয় রাস্তা – ঘাঠ, কাল ভাট, ব্রীজ, ড্রেন, চলাচলের ফুটপাত, নালা, সৌর বিদ্যুৎ ও ওয়াশার বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, নলকুপ মাদ্রাসা, মন্দির, মাজার, ড্রাসবিন, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্টান সহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডে তার যথেষ্ঠ কর্মদক্ষতার ধারাবাহিকতায় ব্যাপক উন্নয়নের ভুমিকা অভ্যাহত থাকায়। তার কর্মকান্ডে শহশ্র ভাগ সৎ, ন্যায়, নিষ্ঠাতায় যে অর্পিত  গুরুদায়িত্ব ও কর্তব্য পালন কালের সময়ে   শতভাগ সফল জনপ্রিয় জন প্রতিনিধি মোঃ আবদুল খালেক একাধিক বার পুরস্কার সহ বিভিন্ন পুরস্কারে ভূষিত হন ।
পৌর কাউন্সিলর পদে যোগদানের পরেই মাঠে  – ময়দানে, পাড়া – মহল্লা, ওলি – গলি সহ বিভিন্ন এলাকায় গরিব দুস্হ, অসহায় সাধারন লোকজনের পাশে থেকে নিরলস ভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। করোনা কালে বিভিন্ন কর্মকার্ন্ডে সাহায্য, সহায়তায়   বর্তমানেও সাধারন মানুষের মাঝে দিন – রাত ঘরে গিয়ে খাবার পৌঁছে দিয়ে নিজের সততায় নিস্বার্থের বিরল দৃষ্ঠান্তর স্হাপনে মাধ্যমে মানুষের অন্তরের মনের কোঠরে স্হান করে নিয়েছেন তিনি। বয়স্ক পুরুষ ও মহিলা নারীদের মধ্যে বাবা ও ছেলে,   যুবক ও যুবতীদের কাছে বড় ভাই, আস্কেল হিসেবে সুপরিচিত। তাই মানুষের মুখে সৎ ও ন্যায়ের প্রতীক ও মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। জন সচেতনতা মূলক কার্যক্রম দিন – রাত ছুটে চলেছেন এক প্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে। সাফল্যের সাথে দায়িত্ব পালন ও শিক্ষা জীবনে সুনামের সহিত পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে কৃতিত্বের  গৌরব অর্জন করেছেন। মোঃ আবদুল খালেক বলেন, আমার নেতা হুইপ শামসুল হক চৌধুরী  এম পির দিক নির্দেশনায়, আমি শতভাগ স্বচ্ছতা জবাব দিহিতার মাধ্যমে সরকারের বহুমুখী উন্নয়ন কর্মকান্ডকে এগিয়ে নেয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে  বলেন, সরকারের বরাদ্দকৃত টাকা বা সম্পদ দুস্থদের মাঝে বিতরণ নিশ্চিত করা, কোথাও কোন ধরনের অনিয়মকে প্রশ্রয় দেওয়া হয় নাই ; হবেও না।
এমনকি গভীর রাত পর্যন্ত একটানা মাঠে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ভয় কে তুচ্ছ করে, জনগণের অর্পিত গুরুদায়িত্ব ও কর্তব্যকে নিষ্ঠায় নিজেকে বিলিয়ে দেয়ার নামের নিঃসার্থকতার প্রমান করেছি। অসীম সাহস আর মনোবল নিয়ে পৌরসভা সহ বিভিন্ন এলাকায় দিন – রাত কখনো খাদ্য বিতরণ, কখনো লোকজনের জটিল সমাস্য, হাসপাতালে ডাক্তার , পৌরসভার সহ বিভিন্ন বিষয়ে মিটিং এভাবে ২৪ ঘন্টা সময পার করছি। জুয়াড়ীদের আস্তানা গুড়িয়ে দিয়েছি। অসহায় দরিদ্র মানুষের খাদ্যের ব্যবস্থা, চিকিৎসা, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সহ বিভিন্ন সেবা মুলক কাজে নিশ্চিত করছে বলে জানান তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.