Ultimate magazine theme for WordPress.

হাইকমান্ড চায় পুঠিয়া পৌরসভা নির্বাচনে সৎ,ত্যাগী এবং মেধাবী ক্লিন ইমেজের প্রার্থী

0
১০ Views
  • ডেক্স রিপোর্ট

রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভার দ্বিতীয় বারের মতো নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের মাঝে। নির্বাচন অফিস বলছেন নতুন করে আইনি কোনো জটিলতা না থাকলে চলতি বছরের শেষের দিকে এখানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আর নির্বাচন ঘিরে মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে মাঠে নেমেছেন প্রায় দুই ডজন প্রার্থী।
এদের মধ্যে বর্তমান মেয়র,জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও একাধিক ব্যবসায়ী এবং সাংবাদিক সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা। ইতোমধ্যে এই মনোনয়নপ্রত্যাশীরা দলের হাইকমান্ডের সাথে যোগাযোগ রেখে চলছেন আবার অনেকেই তৃণমূল নেতা-কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের সমর্থন পেতে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এই পৌরসভাকে উপজেলার মধ্যে সকল নির্বাচনের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে এখানে মেয়র পদের জন্য একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়নের জন্য প্রত্যাশা করছেন তবে এবার দলীয় প্রার্থী যাচাই-বাছাইয়ে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এদের মধ্যে জনকল্যাণমূলক কাজ করেন ও দলের ত্যাগী ও ক্লিন ইমেজের ব্যক্তিকেই মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে সিনিয়র নেতারা একমত প্রকাশ করেছেন।
তৃণমূল পৌরবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে ক্লিন ইমেজ এবং ত্যাগী নেতাদের মধ্যে অন্যতম সাবেক রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং বর্তমান বঙ্গবন্ধু শিশু একাডেমীর পুঠিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি এ,বি, এম শাখাওয়াত হোসেন বাশার তিনি জেলা ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পেয়ে তার রাজনৈতিক ভাবগুরু পুঠিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জনাব জিএম হীরা বাচ্চুর দরদী দায়িত্বপূর্ণ পরামর্শে পুঠিয়া উপজেলার ৫৪টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন সহ পৌরসভা এবং উপজেলা ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী কমিটি পূর্ণ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সুচারু রূপে কাউন্সিল অধিবেশনের মাধ্যমে সফল সাংগঠনিক কমিটি উপহার দিতে মাসের-পর-মাস প্রত্যন্ত গ্রামে পায়ে হেঁটে উপজেলা ছাত্রলীগকে দীর্ঘ সাংগঠনিক সফরের দ্বারা পুঠিয়া উপজেলা ছাত্রলীগকে একটি সাজানো স্বপ্ন দিয়ে তৈরী করে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে নিতে কঠোর পরিশ্রম ও নিরলস ভাবে কাজ করেন যা পরবর্তীকালে আর কেউ করেনি বরং পকেট কমিটি তৈরি করে ছাত্রলীগের ঐতিহ্যকে ম্লান করেছেন তাই পুঠিয়ার সাধারণ জনগণের দাবি এ,বি,এম শাখাওয়াত হোসেন বাশার পৌরসভার মেয়র হয়ে স্বপ্নময় পুঠিয়ার প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সমূহকে যত্নে গড়া হৃদয় দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন গাঁথা ও দেশ রত্ন শেখ হাসিনার মনের মাধুরি মেশানো কর্মপরিকল্পনা দিয়ে পুঠিয়া পৌরসভাকে একটি ডিজিটাল পৌরসভা গড়তে সক্ষম হবেন। তারা আরো বলেন বাশার ভাই মাটি ও মানুষের নেতা যার হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মাথায় দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার তীক্ষ্ণ মেধা ও বহুমুখী প্রতিভাবান একজন বঙ্গবন্ধুর খাঁটি বীর সেনা এমন সৎ ও ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর” যেন সত্যের মূর্ত প্রতীক যা অন্ধকারের মধ্যে উজ্জ্বল সূর্যের আলোর মত এক নক্ষত্রের যোগ্য নেতৃত্বে এই পৌরসভাকে পূর্ণবিকাশ করতে এমন একজন মেয়র প্রার্থী পুঠিয়া পৌরবাসীর প্রাণের দাবি।

জানা গেছে পুঠিয়া পৌরসভা গঠন এর ১৪ বছর পরে আইনি জটিলতা কাটিয়ে ২০০৫ সালের ডিসেম্বর মাসের প্রথম বারের মত এখানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এরপর নানা প্রতিকূলতায় নাগরিকদের চাওয়া না পাওয়ার মধ্যে কেটে যাচ্ছে পাঁচ বছর আগামী ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে এই পৌরসভা নির্বাচন মেয়াদ পূর্ণ হচ্ছে এর মধ্যে যেকোনো সময় সারা দেশের সাথে এখানেও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করবেননির্বাচন কমিশন। সে মোতাবেক উপজেলা নির্বাচন অফিস পৌরসভা এলাকার নতুন-পুরাতন মিলে প্রায় ১৫ হাজারের বেশি ভোটারদের নাম তালিকার কাজ প্রায় শেষ করেছেন

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জয়নুল আবেদীন বলেন চলতি বছরের শেষের দিকে পুঠিয়া পৌরসভা নির্বাচনের পাঁচ বছর পূর্ণ হচ্ছে এখানে নির্বাচনের জন্য এখনও কোনো চিঠি আমরা পাইনি তবে আমাদের পক্ষ থেকে ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি নেওয়া আছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.